দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ফ্রি ও ওয়াইফাই জোন করা হবে–মোস্তফা জব্বার

1

ময়মনসিংহ অফিসঃ শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয়, নেত্রকোণা আজ থেকে উচ্চ গতির ফ্রি ওয়াইফাই সুবিধার আওতাভুক্ত করা হয়েছে। দেশের ৫৮৭টি সরকারি কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় এবং ট্রেনিং ইনস্টিটিউটগুলো শিগগিরই উচ্চ গতির ফ্রি ওয়াই-ফাই সুবিধার আওতাধীন আনতে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ ২০১৮ সালে এই কর্মসূচি গ্রহণ করে। এই কর্মসূচির অংশ হিসেবে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী জনাব মোস্তাফা জব্বার আজ নেত্রকোণায় শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য ফ্রি ওয়াই ফাই জোনের উদ্বোধন করেন । ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের অধীন বিটিসিএল এ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করেছে।

শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয়, নেত্রকোণা এর অস্থায়ী ক্যাম্পাসে উচ্চ গতির ফ্রি ওয়াইফাই সুবিধার উদ্বোধনের মধ্যদিয়ে আজ থেকে এই বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে ওয়াই-ফাইয়ের মাধ্যমে উচ্চ গতির ইন্টারনেট ব্রডব্যান্ড ব্যবহারের সুবিধা পাবেন। টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী জানান, শিক্ষায় ডিজিটাল রূপান্তরের অংশ হিসেবে ডিজিটাল বাংলাদেশের রূপকার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিকনির্দেশনায় প্রাথমিকভাবে সরকারি কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে উচ্চ গতির ইন্টারনেট ব্রডব্যান্ড সংযোগের আওতায় আনা হচ্ছে এবং পর্যায়ক্রমে দেশের সকল বেসরকারি কলেজ ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়সহ সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এ সুবিধা স¤প্রসারণ করা হবে।

৫৮৭টি সরকারি কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ও ট্রেনিং ইনস্টিটিউটগুলোর মধ্যে ঢাকা বিভাগে ১৪৩, ময়মনসিংহ বিভাগে ৩৫, চট্টগ্রাম বিভাগে ১০৭, বরিশাল বিভাগে ৪৫, খুলনা বিভাগে ৮৩, রাজশাহী বিভাগে ৮৫, রংপুর বিভাগে ৫৬ এবং সিলেটে বিভাগে ৩৩টি প্রতিষ্ঠান প্রাথমিকভাবে ফ্রি ওয়াই-ফাই সুবিধার আওতায় আসছে।

সরকারের নিজস্ব অর্থায়নে প্রায় ৪৫ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হচ্ছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়নের পর বিনামূল্যে সংশ্লিষ্ট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহে ১০ এমবিপিএস হারে ব্যান্ডউইথ সরবরাহ করা হবে।

স্বপ্নচূড়া প্রশিক্ষণ ল্যাব উদ্বোধন

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী এর আগে নেত্রকোণা জেলা প্রশাসন ভবনে স্বপ্লচূড়া প্রশিক্ষণ ল্যাব উদ্বোধন করেন। ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের আইসিটি বিভাগ থেকে ২০টি কম্পিউটার এই প্রশিক্ষণ ল্যাবের জন্য সরবরাহ করে। ল্যাবটিতে প্রশিক্ষণ গ্রহণের মাধ্যমে আউট সোর্সিংসহ কম্পিউটারে দক্ষতা অর্জনের মাধ্যমে বেকার তরুণ-তরণীদের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে।

অনুষ্ঠান সমূহে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব সাজ্জাদুল হাসান, সংসদ সদস্য ওয়ারেসাত হোসেন বেলাল (বীর প্রতীক), যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সাবেক উপমন্ত্রী আরিফ খান জয়, জেলা প্রশাসক (ডিসি) মঈনউল ইসলাম, জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) মো. আকবর আলী মুন্সি, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিয়র রহমান, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান প্রশান্ত কুমার রায় পৌর মেয়র নজরুল ইসলাম খান প্রমুখ।