দুই নেতার তুলনামূলক গবেষণা গ্রন্থ বঙ্গবন্ধু ও শের-এ-কাশ্মীর

3

যুগবার্তা ডেস্কঃ ১৯৪৭ সালের দেশভাগের সময় একদিকে পাকিস্তান আন্দোলনের সক্রিয় ও ত্যাগী বাঙালি কর্মী শেখ মুজিবুর রহমান। অন্যদিকে বহুজাতিক ও সেক্যুলার ভারতের স্বপ্নে বিভোর কাশ্মীরি রাজনীতিক শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ। দুটি নামেরই প্রথমাংশ শেখ। উভয়ই মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ সমাজে ছিলেন সেক্যুলার রাজনীতিক।
দক্ষিণ এশিয়ার এই রাজনৈতিক নেতার নেতৃত্ব, সাফল্য-ব্যর্থতা ও সামাজিক আন্দোলনের বিষয়ে তুলনামূলক গবেষণা করেছেন লেখক ও গবেষক জাকারিয়া পলাশের। এ সংগ্রান্ত গ্রন্থটি প্রকাশিত হয়েছে প্রকাশনা সংস্থা ঐতিহ্য থেকে। ১১২ পৃষ্ঠার এ বইটির গায়ের মূল্য রাখা হয়েছে ২১০ টাকা।
গ্রন্থটিতে বিশ্লেষণ করা হয়েছে ভারত ও পাকিস্তানে উভয় নেতাই সক্রিয় ছিলেন স্বায়ত্তশাসনের দাবিতে। এর মধ্যে একজনের স্বায়ত্তশাসনের দাবি স্বাধীনতায় রূপ নিয়েছিল। তিনি হয়েছেন নতুন রাষ্ট্র বাংলাদেশের জাতির পিতা। অন্যজনের স্বায়ত্তশাসনকে সাংবিধানিক স্বীকৃতি দেওয়া হলো, পেয়েছিলেন ‘বিশেষ মর্যাদা’ আর্টিকেল ৩৭০, যা কালক্রমে খর্ব ও বিলুপ্ত হয়ে এখন সাম্প্রদায়িকতার আক্রমণে বিলীন। দুই নেতার রাজনৈতিক ইতিহাসে কেন এই বৈপরীত্য? নেতৃদ্বয়ের আর্থসামাজিক বাস্তবতা এবং তাদের রাজনৈতিক চিন্তা-উদ্যোগের তুলনামূলক বিশ্লেষণের মাধ্যমে সেই প্রশ্নের জবাব অনুসন্ধান করা হয়েছে এ গ্রন্থে। একটি সমান্তরাল পাটাতনের ওপর দুটো আলাদা সমাজের দুইটি জীবনকাহিনীর বর্ণনা করা হয়েছে। সেই সঙ্গে প্রায় শতাব্দীকাল দীর্ঘ ইতিহাসের সংক্ষিপ্ত পুনরালোচনা করা হয়েছে। ফুটিয়ে তোলা হয়েছে দুই এলাকার রাজনীতির গতিধারা।
উল্লেখ্য ২০১৬ সালে লেখক কাশ্মীর ও দক্ষিণ এশিয়া অধ্যয়ন বিষয়ে এম এ ডিগ্রি নিয়েছেন কাশ্মীর বিশ^বিদ্যালয় থেকে। সাউথ এশিয়া ফাউন্ডেশন (সাফ)-এর স্কলারশিপে দুবছর ছিলেন ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মীরের শ্রীনগরে। বঙ্গবন্ধু ও শের-এ-কাশ্মীরকে নিয়ে গবেষণা তার ওই অধ্যয়নের অংশ। রাজনৈতিক নেতৃত্ব নিয়ে আন্তর্জাতিক মানের ওই গবেষণাই বাংলা গ্রন্থাকারে প্রকাশ করেছে ঐতিহ্য। বইটি সম্পর্কে ঐতিহ্যের প্রধান নির্বাহী আরিফুর রহমান নাঈম বলেন, “বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও কাশ্মীরের শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ নিপীড়নমূলক শাসন কাঠামোর বিরুদ্ধে কীভাবে জনগণের সামনে হাজির হয়েছিলেন এবং কীভাবে তাদের কথা তুলে ধরেছিলেন; জনগণের পক্ষ থেকেই বা কী ধরনের প্রতিক্রিয়ার মুখোমুখি হয়েছিলেন, তা উপলব্ধির চেষ্টা এই বই। বইটি অমর একুশে গ্রন্থমেলায় ঐতিহ্যের প্যাভিলিয়নে (প্যাভিলিয়ন ১৪) পাওয়া যাচ্ছে। সেই সঙ্গে সারা দেশে ঐতিহ্যের বুকশপ ‘নির্বাচিতে’র সবকটি আউটলেটে পাওয়া যাবে।”
উল্লেখ্য, কাশ্মীরের রাজনীতি ও সংঘাত প্রসঙ্গে লেখালেখির জন্য জাকারিয়া পলাশ একটি পরিচিত নাম। এর আগে সূচীপত্র প্রকাশনী থেকে ২০১৭ সালে কাশ্মীর: ইতিহাস ও রাজনীতি (২০১৭) এবং ২০১৯ সালে ভ‚স্বর্গে এক টুকরো বাংলাদেশ নামে তার দুটি গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে।