জাফর ইকবালের ওপর হামলায় মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের প্রতিবাদ

নিজস্ব প্রতিবেদক: 

দেশ বরেণ্য শিক্ষাবিদ সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) অধ্যাপক স্বনামধন্য কথা সাহিত্যিক, সুবক্তা, সুলেখক শহীদ মুক্তিযোদ্ধার সন্তান এবং আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান শাবিপ্রবি শাখার প্রধান উপদেষ্টা ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালের উপর সশস্ত্র হামলার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে ‘আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান’ কেন্দ্রীয় কমিটি।
মুক্ত চিন্তার মানুষ জাফর ইকবালের উপর জঙ্গি-সন্ত্রাসী হামলাকে বিচ্ছিন্নভাবে না দেখে রাষ্ট্রীয় সর্বোচ্চ পর্যায়ের প্রশিক্ষিত বাহিনীর মাধ্যমে এর তদন্ত দাবি করে সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি মো. সাজ্জাদ হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক রাশেদুজ্জামান শাহীন আজ এক বিবৃতিতে বলেন, এদেশ থেকে চিরতরে জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদ নির্মূল করতে এর মদদদাতাদের অবিলম্বে গ্রেফতার করতে হবে।
নেতৃবৃন্দ হামলার সঙ্গে জড়িত ধৃত ব্যক্তিকে রিমান্ডে নিয়ে এর নেপথ্যে আর কে কে রয়েছে তা বের করে বাকী জড়িতদের গ্রেফতার করে শাস্তির আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন। পাশাপাশি এই দেশ বরেণ্য অসাম্প্রদায়িক চেতনার পথ প্রদর্শক শিক্ষকের সুচিকিৎসা ও দেশের সকল প্রগতিশীল মুক্ত চিন্তার মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবি জানিয়েছেন।
তারা বলেন, যারা এদেশের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করেনা, দেশের গণতন্ত্র, উন্নয়ন ও অগ্রগতিতে বিশ্বাস করে না তারাই যুব সমাজকে বিভ্রান্ত করে এদেশে জঙ্গিবাদের চাষাবাদ করতে চাচ্ছে।
নেতৃবৃন্দ বলেন, জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে ইতোমধ্যে জাতীয় ঐক্য প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরা যুদ্ধাপরাধীদের দোসরদের এ অপচেষ্ঠা যেকোন মূল্যে প্রতিহত করবে। মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরাই এদেশ থেকে জঙ্গি সন্ত্রাস নির্মূল করবে।
মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের প্রতিনিধিত্বকারী সংগঠন ‘আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান’ এর নেতৃবৃন্দ জঙ্গি, সন্ত্রাস, গুপ্ত হত্যা ও উগ্র সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীর অপতৎপরতার বিরুদ্ধে সারাদেশে মুক্তিকামী মানুষকে গণপ্রতিরোধ গড়ে তোলার আহবান জানান।
নেতৃবৃন্দ বলেন, মুক্তিযোদ্ধাদের অর্জিত বাংলাদেশকে একটি গোষ্ঠি দীর্ঘদিন ধরে বিশ্বের কাছে জঙ্গি রাষ্ট্র হিসেবে পরিচিত করার অপচেষ্টায় লিপ্ত। এই অপশক্তি একের পর এক গুপ্ত হত্যা চালিয়ে বাঙালির হাজার বছরের ঐতিহ্য সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ঠেরও ষড়যন্ত্র করছে। ড. জাফর ইকবালের ওপর হামলার ঘটনাটিও এরই ধারাবহিকতায় সংঘটিত হয়েছে।
তারা বলেন, সকলের ঐক্যবদ্ধ ও সম্মিলিত প্রচেষ্টায় মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাংলাদেশকে জঙ্গী রাষ্ট্র বানানোর দেশী-বিদেশী ষড়যন্ত্র ব্যর্থ হবেই, জয় হবে শুভশক্তির। জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে পারিবারিক সচেতনতা ও সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তোলাও প্রয়োজন।