জঙ্গিবাদ যুদ্ধে বাংলাদেশসহ সব দেশকে পাশে চায় ফ্রান্স

যুগবার্তা ডেস্কঃ ফ্রান্সের লড়াই জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে, কোনো ধর্মের বিরুদ্ধে নয়। কিন্তু ধর্মকে অপব্যবহার করে যারা জঙ্গিবাদের জন্ম দিয়েছে, তাদের নির্মূলে ফ্রান্স সব সময়ই সোচ্চার ছিল, আগামীতেও থাকবে।
ঢাকায় নিযুক্ত ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূত সোফিও আউবার্ট সাক্ষাতকারে এসব মন্তব্য করে বলেন, জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে এই যুদ্ধে বাংলাদেশসহ সব গণতান্ত্রিক দেশকে পাশে চায় তার দেশ। কারণ এই লড়াই সভ্যতাকে রক্ষার জন্য।
ফ্রান্স পুরো বিশ্বে যারা পরিচিত নিজেদের শিল্প-সংস্কৃতি আর সৌন্দর্যের ধারক বাহক হিসেবে। অথচ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর সবচেয়ে ভয়াবহ হামলা হলো ফ্রান্সেই। এরপর থেকেই দেশটি জুড়ে আতঙ্ক। রাজধানী প্যারিসের ৬ টি স্থানে কাছাকাছি সময়ে হামলা চালায় সন্ত্রাসীরা। ভয়াবহ এ হামলার দায় স্বীকার করেছে, জঙ্গি সংগঠন আইএস। আর একে যুদ্ধাবস্থা বলছেন প্রেসিডেন্ট ফ্রাঁসোয়া ওঁলাদ।
কিন্তু ফ্রান্সের দিকে কেন চোখ হামলাকারীদের ?
অনেকের ধারণা ইরাক আর আফগানিস্থানে তথাকথিত সভ্যতা ফিরিয়ে আনতে মার্কিন বাহিনীর সাথে জোট বেধে লড়াই নিজেদের বিরুদ্ধে তৈরী করেছে এই শত্রুদের। সাথে আছে নিজেদের ঘরের বেড়ে উঠা মৌলবাদীদের হুমকিও। মধ্যপ্রাচ্যের সেই যুদ্ধ ছিল সভ্যতা ফিরিয়ে আনতে, বিষয়টি এভাবে দেখতে চান ঢাকায় ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূত সোফিও আউবার্ট।
তিনি আরও বলেন, ‘দেখুন আপনি মুসলমান হতে পারেন, হিন্দু কিংবা খ্রিষ্টান। সেটা কোন সমস্যা ন্। আমাদের লড়াই ছিল অসভ্যদের বিরুদ্ধে। আমি মনে করি সেই যুদ্ধের অংশিদার বাংলাদেশও। আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, কেউ মৌলবাদীদের স্থান দেবে না তার দেশে।’
সোফিও মনে করেন, শুধু ফ্রান্স নয়, এর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে এক সাথে কাজ করতে হবে সকলকে।
তিনি বলেন, ‘আপনারা নিশ্চয়ই খবরে দেখেছেন সিরিয়ার বিষয়ে ঐক্যমত জানান মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ও রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। আমি আশা করছি এবার এই যুদ্ধের অবসান হবে। একটি বিষয় পরিস্কার করা দরকার, আমরা বিশ্বাস করি কেউই কাউকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিতে চায় না। কিন্তু কিছু মানুষ অন্যের প্রতি শ্রদ্ধাশীল নয় তাই তারা এই কাজগুলো করছে।
হামলার পর থেকেই ফ্রান্সে চলছে জরুরী অবস্থা, যা সাধারণত টানা ১২ দিন থাকে। তবে এর ব্যাপ্তি বেড়ে দাড়িয়েছে ৩ মাসে। সোফিও জানান, এর মূল কারণ নিজের দেশকে জঙ্গিমুক্ত করা।
ফ্রান্সের এমন মুহুর্তে সমব্যাথি হবার জন্য সোফিও আউবার্ট ধন্যবাদ জানান বাংলাদেশ সরকার ও এ দেশের মানুষকে।
চ্যানেল ২৪