চুলের যত্নে মিস্ট

27

কিরনঃ নিয়মিত শ্যাম্পু করলেও শীতে চুলের মসৃণতা সহজেই নষ্ট হয়। মাথার ত্বক শুষ্ক থাকায় খুশকি যেমন সমস্যায় ফেলে, তেমনই আবহাওয়ার কারণেও চুলের নিজস্ব লাবণ্য নষ্ট হয়।তাই বাজার থেকে বিভিন্ন উপকরন ব্যবহার করেন।

তবে সহজলভ্য কিছু উপাদানে বাড়িতেই তৈরি করে নিতে পারেন হেয়ার মিস্ট। চুলে জট পড়া, রুক্ষতা সরাতে এই ধরনের মিস্ট যেমন কার্যকর, তেমনই যে কোনও অনুষ্ঠানে চুলে তড়িঘড়ি চটক আনতেও এর জুড়ি নেই। তাই সারা বছরই এর চাহিদা তুঙ্গে। তবে শীত এলে মিস্টের কদর বাড়ে আরও।

এক বার তৈরি করে নিলে একটানা চার-পাঁচ দিন চুলের যত্নে এই মিস্ট ব্যবহার করতে পারবেন। কিন্তু কী কী উপাদানে আর কেমন করে বাড়িতেই বানিয়ে নিতে পারবেন এমন মিস্ট, জানেন?
গ্রিন টি মিস্ট: এই মিস্টের প্রধান উপকরণ চা পাতা। চায়ের লিকার এমনিতেই চুলের সেরা কন্ডিশনার। তাই চুলের রুক্ষতাকে জব্দ করার পাশাপাশি এই মিস্ট চুলকে নরমও করে। আধ কাপ গ্রিন টি, এক কাপ জল, দু’ ফোঁটা পিপারমিন্ট অয়েল, এক চা চামচ টি ট্রি অয়েল ও এক চামচ নারকেল তেল মিশিয়ে ভাল করে ব্লেন্ড করে একটি পুরনো শ্যাম্পুর স্প্রে বোতলে ভরে ফ্রিজে রেখে দিন। টি ট্রি অয়েল অ্যান্টিফাঙ্গাল হওয়ায় খুশকির সমস্যাও দূরে থাকে। নারকেল তেল চুলে পুষ্টিগুণের জোগান দেবে। প্রতি দিন স্নানের পর মিস্ট লাগিয়ে কিছু ক্ষণ রেখে ভাল করে চুল ধুয়ে নিলেই চুলের লাবণ্য ও আর্দ্রতা বজায় থাকবে।

অ্যালো ভেরা মিস্ট: ঘন ঘন চুলে আর্দ্রতা কমে গেলে ভরসা রাখুন এই হেয়ার মিস্টে। আধ কাপ অ্যালো ভেরা রস, এক কাপ জল, এক চা চামচ জোজোবা অয়েল ও এক চা চামচ নারকেল তেলেই এই মিস্ট বাজিমাত করবে। এই মিশ্রণ শ্যাম্পুর বোতলে ভরে ফ্রিজে রেখে দিন। দেবে। প্রতি দিন স্নানের পর মিস্ট লাগিয়ে কিছু ক্ষণ রেখে ভাল করে চুল ধুয়ে নিন। সপ্তাহে অন্তত তিন দিন ব্যবহার করুন তা।