খুবই লজ্জিত স্যার

ফজলুল বারীঃ জাফর ইকবাল, বাংলাদেশের একজন শহীদের সন্তান, বিদেশে উন্নত-নিরাপদ জীবনের মোহ পদদলে মাড়িয়ে দেশকে কিছু দিতে ফিরে এসেছিলেন দেশে। প্রিয় দেশটার যখন যা দরকার, বিশেষ করে তরুনদের প্রয়োজন তিনি অকপটে সবার আগে লিখেন, উচ্চঃস্বরে দাবি করে বলেন। তাঁর লেখাকে-দাবিকে গুরুত্ব দেয় রাষ্ট্র। ফয়জুলের মতো অল্প শিক্ষিত-অর্ধ শিক্ষিতরা সেই জাফর ইকবালের নাম দিয়েছে ইসলামের শত্রু! অনেকে তাকে মারতে চায়, ফয়জুল প্রতিযোগিতায় কাঁচা কাজটি করে ফেলতে গিয়ে ধরা পড়েছে। আর প্রানে বেঁচে যাওয়ায় জাফর ইকবাল স্যার দেখতে-বুঝতে পারলেন তিনি শুধু বাংলাদেশকে ভালোবাসেন না। বাংলাদেশও তাকে প্রানভরে ভালোবাসে। বাংলাদেশ রাষ্ট্র তার অবদানকে গুরুত্ব দেয়। তাঁর জন্যে উদ্বিগ্ন হয়। সে প্রমান তাৎক্ষনিকভাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দিয়েছেন। অধ্যাপক জাফর ইকবালের ওপর হামলার ঘটনার আরো অনেক সুদূরপ্রসারী প্রভাব পড়বে বাংলাদেশের বর্তমানে-ভবিষ্যতে। মৌলবাদীদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে শক্তি জোগাবে। কিন্তু তাঁরতো রক্ত ঝরেছে সিলেটে। এটাতো সত্য। সিলেটের একজন মানুষ হিসাবে খুবই লজ্জিত স্যার। ক্ষমা চাইছি।-লেখকঃ পরিব্রাজক সাংবাদিক, বর্তমানে অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী।