কোটা প্রথা সংস্কারের পিছনে পরিকল্পিত ইন্ধন কাজ করেছে—-ওয়ার্কার্স পার্টি

যুগবার্তা ডেস্কঃ বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির পলিটব্যুরো উদ্বেগের সাথে লক্ষ্য করেছে যে, বেশ কিছুদিন যাবৎ কোটা প্রথা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত তরুণদের সাথে আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর সংঘাত ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। রোববার কোটাবিরোধী আন্দোলনের নামে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বাসভবন আক্রমণ, অগ্নিসংযোগ ও বাড়ির আসবাবপত্র ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। এক পর্যায়ে উপাচার্যের ও তার পরিবারের প্রাণ সংহারের পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়।

পার্টির বিবৃতিতে বলা হয়, বাংলাদেশের ছাত্র আন্দোলনের চরম মুহূর্তে কোন ইতিহাসে মুখোস পরে উপাচার্যের উপর আক্রমণ এবং বাসভবন ভাংচুরের কোন নজির নেই। ওয়ার্কার্স পার্টি মনে করে এই ঘটনার পিছনে পরিকল্পিত ইন্ধন কাজ করেছে। কোটা বিরোধী আন্দোলন সম্পর্কে ওয়ার্কার্স পার্টি বলেছে যে, এই আন্দোলনের দাবি প্রথম থেকেই স্পষ্ট নয়। কখনো ‘কোটা বাতিল’ কখনো সংস্কারের কথা বলা হচ্ছে। উল্লেখযোগ্য যে, এই কোটা ব্যবস্থা নতুন নয়, বহু পূর্ব থেকেই চাকরি নিয়োগ প্রক্রিয়ায় মেধার পাশাপাশি জেলা কোটা, মুক্তিযুদ্ধ কোটা, আদিবাসী কোটা, প্রতিবন্ধী কোটা চালু রয়েছে এবং কোটার নিয়োগও মেধা অনুসরণ করা হয়। সম্প্রতি এক্ষেত্রে বিভ্রান্তি দূর করতে সরকারের তরফ থেকে বলা হয়েছে কোটার ক্ষেত্রে মেধা না পাওয়া গেলে সেই সব শূন্যস্থানে সাধারণ কোটা থেকে পূরণ হবে। তারপরও যদি এই বিষয়ে কোন বিভ্রান্তি থেকে থাকে তা আলোচনার মাধ্যমেই সমাধান করা সম্ভব ছিল। কিন্তু তা না করে ‘ফেসবুক’সহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকে ব্যবহার করে যেভাবে উত্তেজনা ˆতৈরি করা হয়েছে তা নিঃসন্দেহে উদ্বেগজনক। এটাও লক্ষ্য করার বিষয় যে একদা ক্ষমতাসীন বিএনপি তাদের শাসন আমলে এ বিষয়ে কিছু না করলেও এখন তরুণদের এই উত্তেজনাকে কাজে লাগিয়ে পরিস্থিতি সৃষ্টি চেষ্টা করছে। ওয়ার্কার্স পার্টি আলোচনার মাধ্যমে এই সমস্যা সমাধানের আহবান জানিয়েছে।