করোনায় মারা গেলেন এরশাদ ট্রাস্টের চেয়ারম্যান খালেদ আখতার

10

মাহাবুবুর রহমানঃ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ট্রাস্টের চেয়ারম্যান ও জাতীয় পার্টির সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য মেজর (অব.) খালেদ আখতার (৬২) । শনিবার এইচএম এরশাদের বারিধারার প্রেসিডেন্ট পার্কে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ট্রাস্টের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান কাজী মামুনুর রশীদ গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করে তিনি বলেন, গতকাল সকাল ৬টার দিকে ঢাকায় সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়েছে। গত কয়েকদিন ধরে তাকে লাইফ সাপোর্টে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছিল। তিনি জানান, খালেদ আখতার মৃত্যুকালে দুই ছেলে এক মেয় স্ত্রীসহ অসখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন। বাদ আসর সেনানিবাসের মানিকদি কবরস্থানে জানাজা শেষে দাফন করা হয়। কাজী মামুন বলেন, খালেদ আখতারের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করে বলেন, স্বচ্ছতার সাথে তিনি ট্রাস্টের সকল দায়িত্ব পালন করেছেন। এক প্রশ্নের জবাবে কাজী মামুন বলেন, ট্রাস্টের পরবর্তী চেয়ারম্যান কে হবেন তার ট্রাস্টের বৈঠকে নির্ধারণ করা হবে। আগামী ১৪ জুলাই জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে এরশাদ ট্রাস্টের আজ থেকে তিন দিনব্যাপী কর্মসূচির কথা পুনরায় জানান। এ সময় পাশে বসা এরিক এরশাদও খালেদ আখতারের জন্য দোয়া কামনা করেন। সংবাদ সম্মেলনে বিদিশা সিদ্দিক উপস্থিত থাকলেও গণমাধ্যমের সাথে কোনো কথা বলেননি। এসময় ট্রাস্টের অন্যান্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। এদিকে খালেদ আখতারের মৃত্যুতে পৃথক বিবৃতিতে শোক জানিয়েছেন জাপা চেয়ারম্যান জিএম কাদের মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গাঁও এরশাদ ট্রাস্টের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান কাজী মো. মামুনুর রশীদ।

উল্লেখ্য, ১৯৯৬ সালে খালেদ আখতারকে এরশাদ তার ব্যক্তিগত সচিব হিসেবে নিয়োগ দেন। এরশাদের মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি এ পদে বহাল ছিলেন। পাশাপাশি তাকে পার্টির কোষাধ্যক্ষ ও প্রেসিডিয়াম মেম্বার করা হয়। এরশাদের মৃত্যুর পরে দলের নবম জাতীয় কাউন্সিলে তাকে প্রেসিডিয়াম সদস্য পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়। জীবদ্দশায় এরশাদ তার সব সম্পত্তি এরিক এরশাদের দেখভালের জন্য ট্রাস্টের অধীনে দান করেন। সেই ট্রাস্টের চেয়ারম্যান করা হয় খালেদ আখতারকে।