করোনায় দেশে আরও পাঁচ জন শনাক্ত

5

প্রবীর আইচঃ করোনাভাইরাসে দেশে আরও পাঁচ জন শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে আক্রান্ত ৪৪ জন। আজ দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পরিচালক অধ্যাপক ড. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।।

অনলাইন সংবাদ ব্রীফিংএ জানান, দেশে মোট ৪৭ জন আইসোলেশনে আছেন। প্রতিষ্ঠানিক কোয়ারান্টাইনে আছেন ৪৭ জন। নিয়ম না মানায় বিভিন্ন জেলায় জরিমানা করা হচ্ছে।

ফ্লোরা আরও জানান, ২৪ ঘন্টায় নতুন ১২৬ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। এদের মধ্যে দিয়ে ৫ জন শনাক্ত হয়। এর মধ্যে ৪৪ জন আক্রান্ত নিশ্চিত করা হয়েছে। এ থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১১ জন।দেশে মোট মৃত্যু সংখ্যা পাঁচ জন।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানায়, ঢাকার বাহিরেও নমুনা পরীক্ষার ব্যবস্থা হচ্ছে। ইতিমধ্যে ২ লাখ কীট ও চিকিৎসা সরঞ্জাম সংগ্রহে আছে।

আরও জানান, ঢাকায় ৬ হাজার বেড প্রস্তুত রাখা হয়েছে। প্রতি জেলায় একশত বেড রাখা হয়েছে।

জানাগেছে, ঢাকায় পাঁচ হাসপাতাল প্রস্তুত করার কথা হলেও বাস্তবে উল্টো। একটি হাসপাতাল ছাড়া অন্য চারটি কোন চিকিৎসার ব্যবস্থা নাই। আর কুয়েত মৈত্রী হাসপাতালে রয়েছে অব্যবস্থাপনা।

দুই কোটির রাজধানীর শহর এখন নিস্তব্ধ হয়ে গেছে। আইনশৃখলা বাহিনী মাঠে তৎপর। মাইকিং চলছে ঘর থেকে বের না হওয়ার জন্য। এর মধ্য গ্রাম মুখী হয়েছে মানুষ। সড়ক লকডাউন থাকায় ট্রাকসহ বিভিন্ন যানবাহনে ছুটছে মানুষ।

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে ১৫ মিলোমিটার যানজট। বাস চলাচল কম হলেও সবাই ট্রাক, সিএনজি ব্যবহার করছে। ভাড়া গুনতে হচ্ছে বেশী।

গাজীপুর পাঁচ হাজার কারখানার মধ্যে ছুটি হয়েছে ৭৫ টির। ১০-১৫ দিনের ছুটি পেয়ে সবাই গ্রামে ছুটছে শ্রমিকরা।যে যেমন পারছে যাচ্ছে। তাদের চলাচলে শ্রমিকদের করোনা নিয়া কোন সচেতনতা নাই।

টাঙ্গাইলে ত্রিশ লাখ লোক কাজ করে বলে জানিয়েছেন পৌর মেয়র।বাস চলাচল করছেনা। তবে মহা সড়কে দীর্ঘ যানজট হয়েছে। ছুটি পাওয়া লোকজন ট্রাকে যাচ্ছে। ট্রাক চলাচল করায় মানুষ এটি ব্যবহার করছে।

পাটুরিয়া ফেরী চলাচল বন্ধ থাকলেও যাত্রীদের প্রচুর ভীড়।

সারাদেশে গনপরিবহন বন্ধ থাকায় সারাদেশ লকডাউন রয়েছে। ওষুধ, কাঁচা মালের দোকানপাট বন্ধ ঘোষণা করেছে প্রশাসন। মানুষ জন তেমন বের না হলেও ঢাকার মানুষ গিয়ে গ্রামে সমস্যা তৈরী করছে। জেলা ও উপজেলা শহরে আইন শৃখলা বাহিনী তৎপর থাকায় অনেকটা নিয়ন্ত্রণে আছে।
বিভাগীয় অফিস এসব তথ্য জানিয়েছেন।

আগামী দুই সপ্তাহ দেশ বড় ঝঁকিপূর্ণ মনে করছে বিশেষজ্ঞরা।