দেশে আজ কেউ শনাক্ত হয়নি:করোনা লক্ষণে বরিশাল ও রাজশাহীতে মৃত্যু তিন

20

প্রবীর আইচঃ করোনাভাইরাসে দেশে আজ নতুন কোন রোগী শনাক্ত হয়নি। আজ দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পরিচালক অধ্যাপক ড. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তবে বরিশালে দুই জন ও রাজশাহীতে একজন মৃত্যু ব্যক্তিদের করোনায় মৃত্যু সন্দেহ। আর করোনা সন্দেহে একই পরিবারের পাঁচ জনকে রংপুর মেডেকেলে ভর্তি করা হয়েছে।

অনলাইন সংবাদ ব্রীফিংএ জানান, গত ২৪ ঘন্টায় ১০৯ জনের নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। এদের থেকে কেউ আক্রান্ত হয়নি। গতকাল চট্টগ্রামে ৮ জনের বমুনা সংগ্রহ করাদের এখানে যুক্ত করা হয়েছে। এ পর্যন্ত আক্রান্ত ৪৮ জনের মধ্যে ১৫ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক অনলাইনে যুক্ত হয়ে জানান, বিভিন্ন মিডসয় বলা হচ্ছে। আমাদের প্রস্তুতি নেই, তা ঠিক নয়। গত জানুয়ারি থেকে আমরা প্রস্তুতি নিয়েছি। জানুয়ারি থেকে বিমান বন্দরে স্ক্যান করা হয়েছে। তাই আমাদের দেশে এখনও আক্রান্তের সংখ্যা কম।

তিনি বলেন, আমরা ইতিমধ্যে তিন লাখ পিপিই হাসপাতালগুলোতে বিতরণ করা হয়েছে।আরও পাঁচ লাখ প্রস্তর করা হচ্ছে। পাঁচ শত ভেন্টিলেটর আছে। এখনও আমাদের হাতে আছে আড়াই শত। আরও সাড়ে তিন শত আসতেছে।

মন্ত্রী সারাদেশে সাত শত ডাক্তার নিবন্ধিত হওয়ার কথা জানিয়ে বলেন, অনলাইনে গতকাল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সাথে যুক্ত হয়েছিলাম তারা আমাদের বেশ কিছু পরামর্শ দিয়েছেন। এ সময় আরও ১০ টি দেশ ছিল।

তিনি আরও বলেন, ৪৫ হাজার কীট মওজুদ আছে।আরও ৮৫ হাজার কীট হাতে আসবে শীগ্রই। এখন থেকে দেশের ১১ টি স্থান থেকে নমুনা পরীক্ষা করা যাবে। ইতিমধ্যে ৬/৭ টি জায়গা থেকে শুরু হয়েছে।

আমাদের বরিশাল অফিস জানায়, শেরে এ বাংলা মেডিকেল কলেজের করোনা ইউনিটে দুই জনের মৃত্যু হয়েছে। তারা করোনা আক্রান্ত কিনা এখন নিশ্চিত হওয়া যায়নি।
নিরু বেগম (৪৫) শনিবার রাত ১২ টা ৫ মিনিটে মৃত্যু বরণ করেন। তার বাসা শহরের কাউনিয়ার পুরানপাড়া। স্বামীর নাম দুলাল। তাদের দুই সন্তান রয়েছে। হাসপাতাল সূত্র বলেনন, কয়েকদিন আগে নিরু ডায়রিয়া নিয়া ভর্তি হন। সুস্থ হয়ে বাড়ি যান। আবার অসুস্থ হয়ে পড়লে রাত ১২ টায় নিয়ে আসলে অবস্থা দেখে করোনা ইউনিটে পাঠানো হলে ডাক্তার মৃত্যু ঘোষণা করেন।
আর একজন পটুয়াখালী শহরের জেলখানার কাছে কালিকাপুর এলাকায় এক বৃদ্ধ অসুস্থ হয়ে পড়লে শেরে বাংলায় করোনা ইউনিটে মারা যান। নাম আব্দুর রশিদ। বাড়ি ভোলা জেলার লালমোহনের সাতবাড়িয়ায়। ৩/৪ দিন আগে পটুয়াখালী মেয়ে বাড়িতে বেড়াতে যান। তিনি একজন ভ্যান চালক।

রংপুর অফিস জানান, ঠাকুরগাওয়ের একই পরিবারের পাঁচ জনকে রংপুর মেডিকেলে ভর্তি করা হয়। তাদের সকলের মধ্যে করোনার লক্ষন দেখা গেছে। এদের একজনের বয়স ৩০ বছর, তার স্ত্রী বয়স ২৪ বছর, তাদের আড়াই বছের শিশু, তার ছোট ভাইয়ের বয়স ২৭ ও তার স্ত্রী’র বয়স ১৭। এদের একজন গত ২৩ মার্চ মাদারীপুরের শিবচর ঘুরে ২৫ মার্চ বাড়িতে যান। সে ক্যাসিনো ক্লাবে চাকুরি করে। তাদের নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

রাজশাহী অফিস জানান, মেডিকেল কলেজে সর্দি কাশি নিয়ে চিকিৎসাধীন এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। তার বাড়ি নওগাঁর নারানগর। বয়স ২৭ বছর।

এদিকে রাজধানী করোনা সতর্কতায় চুপচাপ হয়ে গেছে। এলাকায় এলাকায় আইশৃখলা বাহিনী মাইকিং করছে। সাধারন মানুষদের সচেতন করছে। বাসার বাহিরে বের হতে নিষেধ করা হচ্ছে। তবে অলি গলিতে আগের তুন দিনের চেয়ে লোক সমাগম বেশী দেখা গেছে। এখনও অনেকে যে যেমন পারছে ঢাকা ছাড়ছেন।

তবে নিম্ন আয়ের মানুষেরা চিন্তিত। দেশে আড়াই কোটি দরিদ্র মানুষ আছে। তারমধ্যে দেড় কোটি মানুষ অতি দরিদ্র। তাদের কাছে খাবার পৌঁছাবে কিনা এটা নিয়ে অস্তির রয়েছে।

সারাদেশে গনপরিবহন বন্ধ থাকায় সারাদেশ লকডাউন রয়েছে। ওষুধ, কাঁচা মালের দোকানপাট বন্ধ ঘোষণা করেছে প্রশাসন। মানুষ জন তেমন বের না হলেও ঢাকার মানুষ গিয়ে গ্রামে সমস্যা তৈরী করছে। জেলা ও উপজেলা শহরে আইন শৃখলা বাহিনী তৎপর থাকায় অনেকটা নিয়ন্ত্রণে আছে।