এসএ গেমসের পর্দা উঠছে আজ

36

অভিনব চৌধূরী, নেপালঃ আজ কাঠমুন্ডতে পর্দা উঠছে সাউথ এশিয়ান (এসএ) গেমসের। এশিয়ার অলিম্পিক খ্যাত এসএ গেমসের ১৩তম আসরের ২৭টি ডিসিপ্লিনের মধ্যে ২৫টিতে অংশ নিচ্ছে বাংলাদেশ।
সর্বশেষ ১৯৮৪ ও ১৯৯৯ সালে এই গেমসের আয়োজন করেছিল নেপাল। ১৯৮৪ সালে প্রথম ও ১৯৯৯ সালে অষ্টম আসরের আয়োজন করেছিল হিমালয় কন্যারা। এবার তৃতীয় বারের মত এসএ গেমসের আয়োজন করতে যাচ্ছে তারা।
কাঠমান্ডুর দশরথ স্টেডিয়ামে আজ রোববার বিকেল ৫টায় পর্দা উঠবে ত্রয়োদশ এ আসরের। দশরথ রঙ্গশালায় প্রথমে প্রবেশ করবেন নেপালের প্রেসিডেন্ট বিদ্যা দেবী ভান্ডারি। এরপরই আসবেন প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলি। আয়োজক কমিটি তাদেরকে ফুল দিয়ে স্বাগত জানাবে। এরপরেই হবে তিন মিনিটের লেজার শো। সাত দেশের ক্রীড়াবিদদের অংশগ্রহণে মার্চপাস্ট পর্যবেক্ষণ করবেন নেপালের প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রী। নেপাল অলিম্পিক কমিটির প্রেসিডেন্ট জীবন রাম শ্রেষ্ঠা উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শুরুর ঘোষনা দেবেন। উদ্বোধনী ভাষন দেবেন দেশটির ন্যাশনাল স্পোর্টস কাউন্সিলের সদস্য সচিব রমেশ কুমার সিলওয়াল। উপস্থিত থাকবেন ক্রীড়া মন্ত্রী জগত বাহাদুর বিশ্বকর্তা সুনার। নেপালের প্রেসিডেন্ট বিদ্যা দেবী ভান্ডারীর উদ্বোধনী ভাষণের পরেই সাবেক চার তারকা অ্যাথলেট মশাল ব্যাটন নিয়ে স্টেডিয়ামে প্রবেশ করবেন। সব শেষে মশাল প্রজ্জ্বলন করে এসএ গেমসে আলো জ্বালাবেন চারবারের সোনাজয়ী সাবেক তায়কোয়ান্ডোকা দীপক বিষ্ঠা। এরপর ক্রীড়াবিদদের পক্ষ থেকে শপথ বাক্য পাঠ করবেন নেপালের তারকা ক্রিকেটার পরেশ খাড়কা এবং কোচদের পক্ষ থেকে রেফারি দীপক থাপা।
বিকেল ৫টায় কাঠমান্ডুর দশরথ রঙ্গশালা স্টেডিয়ামে ৩০ হাজার দর্শক একসাথে উপভোগ করবেন উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। বর্ণিল উদ্বোধনী আয়োজনে থাকবে স্বাগত নৃত্য। ১২ মিনিট স্থায়ী প্রদর্শনীতে নেপালের সেনাবাহিনী, আর্মড পুলিশ ফোর্সেস ও নেপাল পুলিশের এক হাজার চৌকস সেনারা সাত দেশের নামের সঙ্গে মাঠেই সংশ্লিষ্ট দেশের মানচিত্র ফুটিয়ে তুলবেন নিজেরা। নেপালের ঐতিহ্যবাহী নৃত্যও থাকবে। যা ‘মাসকেলেস থিনিক’ নামে পরিচিত।