‘এবি পার্টি’-‘গণফোরাম’ জাতীয় ঐকমত্য তৈরীতে কাজ করতে আগ্রহী

স্টাফ রিপোটারঃ নির্দলীয় অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের অধীনে নির্বাচন এবং দেশ পূণর্গঠনের ভবিষ্যত পরিকল্পনার ভিত্তিতে জাতীয় ঐকমত্য তৈরীতে কাজ করতে আগ্রহী ‘এবি পার্টি’ ও ‘গণফোরাম’।

চলমান রাজনৈতিক সংকটে জাতীয় ঐক্য ও সংহতিকে প্রাধান্য দিয়ে ধারাবাহিক কর্মসূচির অংশ হিসেবে পরস্পর মতবিনিময় ও দ্বিপাক্ষিক সংলাপ করেছে আমার বাংলাদেশ পার্টি (এবি পার্টি) ও গণফোরাম।

মঙ্গলবার বিকালে গণফোরামের আরামবাগস্থ কেন্দ্রীয় কার্যালয়-এ সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়।

গণফোরামের আমন্ত্রণে এবি পার্টির আহবায়ক এএফএম সোলায়মান চৌধুরী ও সদস্য সচিব মজিবুর রহমান মঞ্জুর নেতৃত্বে এবি পার্টির প্রতিনিধি দল বিকেল ৪ টায় গণফোরাম কার্যালয়ে পৌঁছান। গণফোরাম সাধারণ সম্পাদক সিনিয়র অ্যাডভেকেট সুব্রত চৌধুরী, নির্বাহী সভাপতি অধ্যাপক ড. আবু সাইয়িদ, অ্যাডভেকেট মহসিন রশিদ, মহিউদ্দিন আবদুল কাদের, সভাপতি মন্ডলীর সদস্য মুক্তিযোদ্ধা খান সিদ্দিকুর রহমান ও মোঃ হাসিব চৌধুরী, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আইয়ুব খান ফারুক, তথ্য ও গণমাধ্যম সম্পাদক মুহাম্মদ উল্লাহ মধু এবং দপ্তর সম্পাদক শরীফ আব্দুল্লাহ সহ শীর্ষ নেতৃবৃন্দ তাদের স্বাগত জানান।

এবি পার্টির নেতৃবৃন্দের মধ্যে প্রতিনিধি দলে ছিলেন যুগ্ম সদস্য সচিব ব্যারিষ্টার আসাদুজ্জামান ফুয়াদ, ব্যারিষ্টার যোবায়ের আহমেদ ভূঁইয়া ও বিএম নাজমূল হক, কেন্দ্রীয় অফিস সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুল্লাহ আল মামুন রানা, কেন্দ্রীয় অর্থ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম এফসিএ, সিনিয়র সহকারী সদস্য সচিব আনোয়ার সাদাত টুটুল, এবি যুব পার্টির সদস্য সচিব শাহাদাত উল্লাহ টুটুল এবং কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সুলতানা রাজিয়া।

গণফোরাম সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোস্তফা মোহসীন মন্টু এবি পার্টি নেতৃবৃন্দকে ধন্যবাদ জানান। তিনি নতুন রাজনৈতিক দল হিসেবে এবি পার্টির উদ্যোগকে সাধুবাদ এবং তাদের প্রতিশ্রুতিশীল নেতৃত্বের প্রশংসা করেন। তিনি বলেন বর্তমান পরিস্থিতিতে শুধু নির্দলীয় নির্বাচনই সমাধান নয় দেশ পূণর্গঠনের জন্য ভবিষ্যত পরিকল্পনার ভিত্তিতে জাতীয় ঐকমত্য তৈরীতে আমাদেরকে কাজ করতে হবে। তিনি ঐকমত্য তৈরীর জন্য লিঁয়াজো কমিটি গঠন করে কাজ করার প্রস্তাব করেন।

সাবেক তথ্যমন্ত্রী ও বাংলাদেশের সংবিধান প্রণয়ন কমিটির সদস্য অধ্যাপক ড. আবু সাইয়িদ এবি পার্টির রাষ্ট্র মেরামতের রূপরেখার উপর পর্যালোচনা তুলে ধরে বলেন, তরুণ প্রজন্মের জন্য এই প্রস্তাবনাগুলো ইতিবাচক ও আমার কাছে গ্রহণযোগ্য মনে হয়েছে। তিনি বাংলাদেশের রাজনীতিতে বিকল্প আশা জাগানিয়া কর্মসূচি গ্রহনের জন্য অভিজ্ঞতালব্ধ বিশ্লেষণ তুলে ধরেন।

এবি পার্টির আহ্বায়ক, সাবেক সচিব এ.এফ.এম সোলায়মান চৌধুরী আমন্ত্রণের জন্য গণফোরাম নেতৃবৃন্দকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান। তিনি গণফোরামের সাথে সংলাপ কে বর্তমান সময়ে খুবই ইতিবাচক হিসেবে উল্লেখ করেন।

সংলাপ ও মতবিনিময়কালে উভয় দলের নেতৃবৃন্দের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন গণফোরাম সাধারণ সম্পাদক সিনিয়র অ্যাডভেকেট সুব্রত চৌধুরী, এবি পার্টির সদস্য সচিব মজিবুর রহমান মঞ্জু, গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভেকেট মহসিন রশিদ, মহিউদ্দিন আবদুল কাদের, সভাপতি মন্ডলীর সদস্য মুক্তিযোদ্ধা খান সিদ্দিকুর রহমান ও এবি পার্টির যুগ্ম সদস্য সচিব ব্যারিষ্টার আসাদুজ্জামান ফুয়াদ। সভায় নেতৃবৃন্দ দেশের চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি, আগামী নির্বাচন ও আন্দোলন কর্মসূচি নিয়ে খোলামেলা আলোচনা করেন। রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যকার দূরত্ব ও পরস্পরের প্রতি কাঁদা ছোড়াছুড়ি কে তাঁরা জাতীয় রাজনীতির একটা সমস্যা হিসেবে চিহ্নিত করেন। তাঁরা গতকাল ঢাকা মহানগরের উত্তরায় বিআরটি’র গার্ডার ছিটকে পড়ে ৫ জনের মর্মান্তিক মৃত্যু ও চকবাজারে প্লাস্টিক কারখানায় অগ্নিকান্ডে পুড়ে ৬ জন মানুষের মৃত্যুর ঘটনায় দূঃখ ও ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তারা এসকল ঘটনায় সরকারের দায়িত্বহীনতা ও ব্যর্থতার তীব্র সমলোচনা করেন এবং দোষীদের দ্রুত শাস্তির ব্যবস্থা ও ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার গুলোর পূণর্বাসন সহ যথাযথ ক্ষতিপূরণের জোর দাবি জানান।

মতবিনিময় শেষে এবি পার্টি নেতৃবৃন্দ গণফোরাম নেতৃবৃন্দকে দলের খসড়া গঠনতন্ত্র ও দলীয় পরিচিতি সম্বলিত বুকলেট উপহার দেন।