আজিজের কর্মকান্ডে দক্ষিণাঞ্চলে আওয়ামীলীগের ভীত শক্ত হয়েছিলো

মোংলা অফিসঃ শেখ আব্দুল আজিজের কর্মকান্ডে দক্ষিণাঞ্চলে আ্ওয়ামীলীগের ভীত শক্ত হয়েছিলো। মুক্তির সংগ্রামে আগে ও পরে বঙ্গবন্ধুর পাশে থেকে তিনি সক্রিয় সহযোগিতা করেছেন। মুক্তির সংগ্রামকে তরান্বিত করেছেন। স্বাধীনতা সংগ্রামে অংশ নিয়েছেন। বঙ্গবন্ধুর মন্ত্রীসভায় নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন। অতীতকে ভুলে গেলে হবে না। যে জাতি অতীতকে ভুলে যায় সেই জাতি মাথা তুলে দাড়াতে পারে না। শুক্রবার সকালে মোংলা পৌর আ্ওয়ামীলীগ আয়োজিত বঙ্গবন্ধুর মন্ত্রী সভার সদস্য শেখ আব্দুল আজিজের প্রয়াণে স্মরণ সভা ও দোয়া-মোনাজাত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার এমপি এ কথা বলেন।

শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টায় অনুষ্ঠিত স্মরণ সভা ও দোয়া-মোনাজাত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মোংলা পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি সেখ আব্দুস সালাম। স্মরণ সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা আ্ওয়ামীলীগের সভাপতি অধ্যক্ষ সুনিল কুমার বিশ্বাস, উপজেলা চেয়ারম্যান আবু তাহের হাওলাদার, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মিসেস কামরুন নাহার হাই, জেলা পরিষদ সদস্য সেখ আব্দুর রহমান, মোংলা প্রেসক্লাব সভাপতি এইচ এম দুলাল ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ ইকবাল হোসেন। স্মরণ সভায় উপস্থিত ছিলেন ইউপি চেয়ারম্যান মোল্লা মোঃ তারিকুল ইসলাম, গাজী আকবর হোসেন, মোঃ ইস্রাফিল হোসেন হাওলাদার, নারজিনা বেগম নাজিন, আওয়ামীলীগ নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল লতিফ হ্ওালাদার, কাজী গোলাম হোসেন বাবলু, সাখাওয়াত হোসেন মিলন, যুবলীগ নেতা শেখ কামরুজ্জামান জসিম, শেখ আল মামুন, শ্রমিক লীগ নেতা ওমর ফারুক সেন্টু, নুরুদ্দিন আল মাসুদ, ছাত্রলীগ নেতা শিকদার ইয়াসিন আরাফাত, শেখ শাহরুখ বাপী, রাজুল ইসলাম সানি প্রমূখ।

স্মরণ সভা শেষে উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার এমপি মোংলা পৌর আ্ওয়ামীলীগের সদস্য সংগ্রহ অভিযান আনুষ্ঠানিক ভাবে উদ্বোধন করেন। অন্যদিকে স্মরণ সভা শুরুর আগে শুক্রবার সকালে মোংলায় গণমাধ্যম কর্মীদের এক প্রশ্নের উত্তরে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার এমপি বলেন সুন্দরবনের পশুর নদীতে সার ভর্তি বার্জ ডুবির ফলে পরিবেশের এবং জলজ প্রাণীর ক্ষতি হচ্ছে। বন্দরের চ্যানেল ব্যবহারে ঝুঁকি বেড়েছে। মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষকে দ্রুত ডুবন্ত বার্জ উত্তোলনের উদ্যোগ নিতে হবে।

উল্লেখ্য, গত ৯ এপ্রিল মঙ্গলবার রাতে বড় জাহাজের ধাক্কায় ৬শ মেট্রিক টন সার ভর্তি বার্জ হারডা ও লঞ্চ এম এল আকতার ডুবে যায় সুন্দরবনের পশুর নদীতে। তিনদিন অতিবাহিত হলেও এখনো বার্জ এবং লঞ্চ উত্তোলন করা হয়নি।