অনলাইন পত্রিকা চালাতে নিবন্ধন লাগবে

যুগবার্তা ডেস্কঃ অপসাংবাদিকতা ঠেকাতে দেশের সব অনলাইন গণমাধ্যমকে নিবন্ধনের আওতায় আনতে ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়েছে সরকার। অনলাইন পত্রিকা চালাতে হলে সরকারের বেঁধে দেয়া সময়ের মধ্যেই নিবন্ধন করতে হবে। সোমবার এক তথ্যবিবরণীতে এ কথা জানানো হয়েছে।
পত্রিকার অনলাইন সংষ্করণের বিষয়ে কিছু উল্লেখ না থাকলেও তথ্য মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, পত্রিকাগুলোকেও তাদের অনলাইন সংষ্করণের জন্য নতুন করে আবেদন করতে হবে।
তথ্যবিবরণীতে বলা হয়, দেশের অনলাইন পত্রিকার প্রকাশকদের পত্রিকা প্রকাশের ক্ষেত্রে সরকারি সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করা এবং অপসাংবাদিকতা রোধ করার লক্ষ্যে সরকার অনলাইন পত্রিকা নিবন্ধন কার্যক্রম চালু করেছে। এ লক্ষ্যে নির্ধারিত নিবন্ধন ফরম ও একটি প্রত্যয়নপত্র বা হলফনামা পূরণ করে তথ্য অধিদপ্তরে জমা দিতে হবে।
আবেদন ফরম এবং প্রত্যয়নপত্রের নমুনা তথ্য অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে।
নিবন্ধনের জন্য ফরম ও প্রত্যয়নপত্রের নমুনা সাময়িকভাবে তথ্য অধিদপ্তরের প্রটোকল শাখা থেকে সংগ্রহ করা যাবে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়।
বিভিন্ন অনলাইন পত্রিকার দাখিল করা তথ্য যাচাই করে তথ্য অধিদপ্তর নিবন্ধন দেবে।
তথ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, নিবন্ধন পাওয়া কোনো অনলাইন পত্রিকা কয়টি অ্যাক্রিডিটেশন কার্ড পাবে তা ওই পত্রিকার অ্যালেক্সা রেটিং, গুগল অ্যানালিটিক্স, নিজস্ব কনটেন্টের পরিমাণ ও সাংবাদিকের সংখ্যার ওপর ভিত্তি করে দেওয়ার চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে।
তথ্যমন্ত্রী এবং তথ্যসচিবের নির্দেশনা অনুযায়ীই তথ্য অধিদপ্তরকে অনলাইন পত্রিকাগুলোকে নতুন করে নিবন্ধনের আওতায় আনার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে বলে জানায় সূত্রটি।
বর্তমানে ১৩৮টি অনলাইন পত্রিকাকে অ্যাক্রিডিটেশন কার্ড দেওয়া হয়েছে। আর সারা দেশের প্রায় তিন হাজার গণমাধ্যম অ্যাক্রিডিটেশন কার্ড পেয়েছে। এখন থেকে কোনো অনলাইন পত্রিকাকে নিবন্ধন দেওয়ার আগে পুলিশের বিশেষ বিভাগের কর্মকর্তরা ওই অনলাইন পত্রিকার অফিস পরিদর্শন করে মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন দেবে। তবে তথ্যবিরবরণীতে বিভিন্ন পত্রিকার অনলাইন ভার্সনের নতুন করে নিবন্ধের বিষয়ে কিছু বলা হয়নি।
এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তথ্য মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, “পত্রিকাগুলোর অনলাইনের জন্যও নতুন করে নিবন্ধন নিতে হবে। এর আগে অ্যাক্রিডিটেশন কার্ড পাওয়া যেসব অনলাইন পত্রিকা নতুন করে নিবন্ধন পাবে না তাদের কার্ড বাতিল করা হবে।”